কূপ ও নলকূপ সেচ

কূপ ও নলকূপ সেচ (Well and Tubewell Irrigation)


ভারতের যেসব স্থানে ভূপৃষ্ঠের খুব কাছে ভৌম জলস্তর অবস্থান করে সেখানে তৌমজল উত্তোলনের মাধ্যমে জলসেচ করার জন্য কূপ ও নলকূপ তৈরি করা হয়। সেচসেবিত অঞ্চলসমূহ: কূপের সাহায্যে প্রধানত সর্বাধিক সেচকাজ হয় উত্তরপ্রদেশে (প্রায় 28.6%), দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে রাজস্থান (প্রায় 10.7%) এবং তৃতীয় স্থানে আছে পাঞ্জাব (প্রায় 9.2%)। এ ছাড়া মধ্যপ্রদেশ, গুজরাট, বিহার, মহারাষ্ট্র প্রভৃতি রাজ্যে কূপের মাধ্যমে জলসেচ করা হয়। অন্যদিকে পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তরপ্রদেশ, পশ্চিমবঙ্গ, বিহার প্রভৃতি রাজ্যেও জলসেচের ক্ষেত্রে নলকূপের ব্যবহার যথেষ্ট মাত্রায় লক্ষ করা যায়। উত্তর ভারতে নলকূপের মাধ্যমে সেচের প্রচলন অপেক্ষাতে বেশি দেখা যায়। দক্ষিণ ভারতে কঠিন শিল্পস্তর, তরঙ্গায়িত ভূমিভাগ ও ভৌমজলের অধিক গভীরতায় অবস্থান প্রভৃতি কারণে। কৌশল: প্রাচীনযুগ থেকে ভারতে কূপ ও নলকূপের ব্যবহার প্রচলিত। (a) কূপ (Well): (i) সাধারণ কূপ থেকে কপিকলের সাহায্যে জল তোলা যায়। (ii) প্রাচীন পদ্ধতির ক্ষেত্রে টিনের বিশাল পাত্র বা মোষের চামড়া দিয়ে তৈরি থলির সাহায্যে জল তোলা হয়। (iii) পার্সিয়ান হুইল পদ্ধতিতে পশুশ্রমের সাহায্যে একটি চাকার গায়ে লাগানো বালতিগুলিকে ঘোরানো হয় এবং বালতি করে জল ওপরে তোলা হয়। (b) নলকূপ (Tubewell): নলকূপকে দুটি ভাগে ভাগ করা যায়- (i) অগভীর নলকূপ (Shallow Tubewell): অগভীর প্রকৃতির নলকূপ থেকে পাম্প করে অথবা হাতের সাহায্যে জল তোলা হয়ে থাকে। (ii) গভীর নলকূপ (Deep Tubewell): ডিজেল চালিত পাম্প বা বৈদ্যুতিক পাম্পের মাধ্যমে গভীর নলকূপ থেকে সেচের জল তোলা হয়। 


কূপ ও নলকূপ সেচ এর সুবিধা: 


(i) ভারতের গাঙ্গেয় সমভূমি অঞ্চলের নরম পলিমাটিতে খুব সহজেই কূপ ও নলকূপ খনন করা হয়। (ii) যথেষ্ট সুলভ ও সহজ পদ্ধতি হওয়ায় এর জনপ্রিয়তা অত্যন্ত বেশি। (iii) নদী থেকে অনেক দূরে অবস্থিত জমিতে এই পদ্ধতিতে জলসেচ করা যায়। (iv) জলের অপচয় খুব কম হয়। (ⅳ) প্রয়োজন অনুযায়ী জল উত্তোলন করার স্বাধীনতা এই পদ্ধতিতে থাকে। (vi) মৃত্তিকার উর্বরতা বৃদ্ধিকারী বহু রাসায়নিক পদার্থ ভৌমজলের সঙ্গে মিশ্রিত অবস্থায় নলকূপের মাধ্যমে উঠে আসে এবং মৃত্তিকায় অবস্থান করে।


কূপ ও নলকূপ সেচ এর অসুবিধা: 


(i) নলকূপের মাধ্যমে অপ্রয়োজনীয়ভাবে জল তোলা হয়। (ii) কূপের জলে লবণের পরিমাণ বেশি থাকায় জমি লবণাক্ত হয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা যায়। (iii) কূপ বা নলকূপের সাহায্যে অতিরিক্ত মাত্রায় জল উত্তোলনের ফলে ভৌম জলস্তরের উচ্চতা হ্রাস পায়। (iv) একটি নলকূপের সাহায্যে 1-9 হেক্টর জমির বেশি জলসেচ করা সম্ভব হয় না। (v) দাক্ষিণাত্যের কঠিন শিলা দ্বারা গঠিত ভূমিভাগে নলকূপ ও কূপ খনন করা ব্যয়বহুল ও পরিশ্রম সাপেক্ষ।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

1 মন্তব্যসমূহ